Text size A A A
Color C C C C
পাতা

ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচি

          বর্তমান সরকারের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে উচ্চ মাধ্যমিক ও তদূর্ধ্ব পর্যায়ের শিক্ষায় শিক্ষিত আগ্রহী বেকার যুবক/যুবমহিলাদের জাতি গঠনমূলক কর্মকান্ডে সম্পৃক্তকরণের মাধ্যমে অস্থায়ী কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে ন্যাশনাল সার্ভিস সরকারের অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত একটি কর্মসূচি। এ কর্মসূচি প্রাথমিকভাবে পাইলট কর্মসূচি হিসেবে ২০০৯-২০১০ অর্থ বছরে কুড়িগ্রাম, বরগুনা ও গোপালগঞ্জ জেলায় বাস্তবায়ন শুরু হয়। ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচির অনুমোদিত নীতিমালা অনুযায়ী শিক্ষিত বেকার যুবক/যুবমহিলাদের দশটি সুনির্দিষ্ট মডিউলে তিন মাস মেয়াদি মৌলিক প্রশিক্ষণ প্রদানের পর জাতি গঠনমূলক কর্মকান্ডে সম্পৃক্তকরণের মাধ্যমে অস্থায়ী কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা হয়। প্রশিক্ষণ চলাকালীন প্রত্যেক প্রশিক্ষণার্থীকে দৈনিক ১০০/- টাকা হারে প্রশিক্ষণ ভাতা এবং প্রশিক্ষণোত্তর অস্থায়ী কর্মসংস্থানে নিয়োজিত হওয়ার পর দৈনিক ২০০/- টাকা হারে কর্মভাতা প্রদান করা হয়। কর্মভাতা হতে প্রত্যেকে মাস শেষে ৪০০০ টাকা নগদ পায় এবং অবশিষ্ট ২০০০ টাকা সংশ্লিষ্টদের ব্যাংক হিসাবে জমা থাকে যা অস্থায়ী কর্মের মেয়াদ পূর্তিতে ফেরত প্রদান করা হয়। দ্বিতীয় পর্বে রংপুর বিভাগের ৭টি জেলার ৮টি উপজেলায় ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচি ২০১১-২০১২ অর্থ বছরে  সম্প্রসারণ করা হয়। তৃতীয় পর্বে দেশের দরিদ্রতম ১৭টি জেলার ১৭টি উপজেলায় ২০১৪-২০১৫ অর্থ বছরে, ২০১৫-২০১৬ অর্থ বছরে চতুর্থ পর্বে ৭টি জেলার ২০টি উপজেলায়, পঞ্চম পর্বে ১৫টি জেলার ২৪টি উপজেলায়, ২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরে ষষ্ঠ পর্ব এবং  সপ্তম পর্ব সম্প্রসারণ করা হয়েছে । প্রথম ও দ্বিতীয় পর্বের অস্থায়ী কর্মসংস্থানের মেয়াদ ইতোমধ্যে সমাপ্ত হয়েছে এবং তৃতীয় পর্বের অস্থায়ী কর্মসংস্থানের মেয়াদ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ এ সমাপ্ত হবে। অস্থায়ী কর্মসংস্থান উপজেলা প্রশাসন, আইন শৃংখলা রক্ষা, স্কুল, কলেজ, মাদরাসা, পৌরসভা, ইউনিয়ন পরিষদ, উপজেলা হাসপাতাল, ক্লিনিক, ব্যাংক ও বিভিন্ন সেবামূলক সরকারী ও বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে সৃষ্টি করা হয়েছে। কর্মসূচির প্রশিক্ষণ ও অস্থায়ী সংযুক্তির অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে একজন যুবক/যুবমহিলা কর্ম-সমাপনান্তে উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ নির্মাণে সক্ষম হবেন। পর্যায়ক্রমে এ কর্মসূচি দেশের সকল জেলা ও উপজেলায় সম্প্রসারণ করার পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে।          

 

১০টি নির্ধারিত মডিউলঃ

১। জাতি গঠন ও চরিত্র গঠনমূলক প্রশিক্ষণ।
২। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও সমাজসেবামূলক প্রশিক্ষণ।
৩। মৌলিক কম্পিউটার প্রশিক্ষণ মডিউল।
৪। আত্মকর্মসংস্থানমূলক প্রশিক্ষণ মডিউল।
৫। সরকারের বিভিন্ন সেবা ক্ষেত্র সম্পর্কে ধারণা মডিউল।
৬। স্বাস্থ্য  ও পরিবার পরিকল্পনা সেবা কার্যক্রম প্রশিক্ষণ মডিউল।
৭। শিক্ষা ও শারীরিক শিক্ষা বিষয়ক প্রশিক্ষণ মডিউল।
৮। কৃষি বন ও পরিবেশ বিষয়ক প্রশিক্ষণ মডিউল।
৯। জননিরাপত্তা ও আইন শঙখলা বিষয়ক প্রশিক্ষণ মডিউল।
১০। ইউনিয়ন পরিষদ ও উপজেলা পরিষদ সেবা কার্যক্রম সংক্রান্ত মডিউল।

 

 

সিলেট জেলার ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচির বর্তমান চিত্রঃ

 

         ক) ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচি (৪র্থ পর্ব) এর আওতায় গোয়াইনঘাট উপজেলায় মোট ১২৯৫ জনের মধ্যে ৫৫৯ জন যুবক ও ৭২৫ জন যুব মহিলাসহ মোট ১২৮৩ জনকে সংযুক্তি প্রদান করা হয়েছে, ড্রপআউট হয়েছে-১২ জন এবং কানাইঘাট উপজেলায় মোট ৫২৭ জনের মধ্যে ৩১৩ জন যুবক ও ১৯২ জন যুব মহিলাসহ মোট ৫০৫ জনকে সংযুক্তি প্রদান করা হয়েছে, ড্রপআউট হয়েছে-২২ জন।

 

         খ) ৫ম পর্বে জকিগঞ্জ উপজেলায় মোট ৮৩৬ জনের মধ্যে ৪৩৭ জন যুবক ও ৩৭৭ জন যুব মহিলাকে সংযুক্তি প্রদান করা হয়েছে, ড্রপআউট হয়েছে-২২ জন। দুই বৎসর মেয়াদে সম্পূর্ণ অস্থায়ীভিত্তিতে মাসিক ৬,০০০/- টাকা কর্মভাতা প্রদানের মাধ্যমে বিভিন্ন সরকারী দপ্তর ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সংযুক্তি প্রদান করা হয়েছে।

 

         গ) ৬ষ্ঠ পর্বে জৈন্তাপুর উপজেলায় ৪৯৮ জন যুবক ও ৪১৮ জন যুব মহিলাকে চূড়ান্তভাবে বাছাই করা হয়েছে এবং ০৩/১২/২০১৭খ্রিঃ তারিখ হতে ৫টি ভেন্যুতে তিনমাস মেয়াদী প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে এবং প্রশিক্ষণ শেষে তাদেরকে উক্ত উপজেলার সরকারী বিভিন্ন দপ্তরে ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে দুই বৎসর মেয়াদে সম্পূর্ণ অস্থায়ীভিত্তিতে মাসিক ৬,০০০/- টাকা হারে কর্মভাতা প্রদানের মাধ্যমে সংযুক্ত করা হবে।

 

         ঘ) ৭ম পর্বে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় ১৩৩ জন যুবক ও ১২৮ জন যুব মহিলাসহ মোট ২৬১ জনকে চুড়ান্তভাবে বাছাই করা হয়েছে। তাদের ০৭/১২/২১০৭খ্রিঃ তারিখ হতে দুইটি ভেন্যুতে প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। প্রশিক্ষণ শেষে তাদেরকে উক্ত উপজেলার সরকারী বিভিন্ন দপ্তরে ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে দুই বৎসর মেয়াদে সম্পূর্ণ অস্থায়ীভিত্তিতে মাসিক ৬,০০০/- টাকা হারে কর্মভাতা প্রদানের মাধ্যমে সংযুক্ত প্রদান করা হবে।

 

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)